1. mistupoddar056@gmail.com : Bangla : Bangla
  2. admin@jatiyokhobor.com : jatiyokhobor :
  3. suhagranalive@gmail.com : Suhag Rana : Suhag Rana
শুক্রবার, ২৫ জুন ২০২১, ১১:৫৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
ধন্যবাদ জানাই  গুগলকে আমাদের প্রচেষ্টাকে সম্মান করার জন্য পৃথিবীর অভ্যন্তরীণ গতিবিধি থেকে নতুন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বিজ্ঞানিরা করোনার ভ্যাকসিনের বিশ্বব্যাপী বিতরণ শুরু দ্রুত ভ্রমণের জন্য মহাকাশে হাই বে পথও আছে ভিটামিন ডি করোনার মৃত্যুর ঝুঁকি হ্রাস করে গবেষণায় জানা গেছে জীবনের অনেক চিহ্ন এখনও মঙ্গল গ্রহের পরিবেশে বিদ্যমান অক্সিজেনের সাহায্যে বয়সকে মাত দিতে চলেছেন বিজ্ঞানিরা এর ডানার বিস্তার ছিল বিশ ফুট ছিলো প্রাগতৈহাসিক যুগে গুরু এবং শনি একে অপরের নিকটে আসছে হত্যা চেষ্টা মামলার আসামী নিশির সাথে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সেক্রেটারি লেখকের অনৈতিক সম্পর্কের অভিযোগ রাশিয়ান বিজ্ঞানী কে হত্যা করা হয়েছে করোনার ভ্যাকসিনের সাথে যুক্ত ছিলেন গুদামে সরবরাহিত চিনি জেলা প্রশাসক অফিসে জানানো হবে মানসিক হয়রানি তদন্ত এবং দুই ব্যক্তির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া ভারতীয় সেনাবাহিনীর ইউনিফর্ম পরিবর্তন করা হবে চিকিত্সার অভাবে মারা গেল লাপুংয়ের কেওয়াত টালির দরিদ্র শ্রমিক

জুয়া খেলতে নিজের পরিবারের সাথে আসেন মহিলারা

Reporter Name
  • পোষ্ট করেছে : Wednesday, 4 December, 2019
  • ৪৬ জন দেখেছেন
  • মহিলারা বাচ্চাদের সাথে জুয়া খেলায়ও অংশ নেন
  • মালদার এই জুয়াড়ী মেলা বছরে একবার হয়
  • বাড়ির মহিলাদের নিয়ে আসাটাই ঐতিহ্য
  • ষষ্ঠীর মাতা পুজোর পরে মেলা শুরু হয়
  • জুয়া খেলা কেন সেই ব্যাপারে শুধু গল্প
  • এই মেলার ইতিহাসে সম্পর্কে তথ্য নেই
প্রতিনিধি

মালদা: জুয়া খেলতে মহিলাদের আগ্রহ মালদার এই মেলায় এসে দেখা

যেতে পারে। এই জুয়া খেলাটিকে একটি খারাপ জিনিস বলে মনে করা হয়,

এটি একটি সাধারণ বক্তব্য। বলা হয় জুয়া খেলা নিজের এবং তার

পরিবারের জন্য সর্বনাশের কারণ। মহাভারত কাল থেকে আজ অব্দি এই

উক্তিটি সত্যই।

তবে পুরুষদের নিয়ে মালদা এই মেলায় বছরে একবার মহিলারাও প্রকাশ্যে

জুয়া খেলেন। এটি জুয়াড়ী মেলা নামেও পরিচিত। মালদা পৌরসভার

৪ নম্বর ওয়ার্ডের মোকাদিপুর এলাকায় এই মেলা অনুষ্ঠিত হয়। মঙ্গলবার

সকাল থেকেই এই মেলায় অংশগ্রহণকারীদের প্রচুর ভিড় ছিল। লোকেরা

নিজের পরিবার ও ছেলেমেয়েদের সাথে মেলায় অংশ নিতে এই মেলায়

এসেছিলেন। এই মেলার বিশেষ বিষয় হ’ল এখানে জুয়া খেলা শুরু হওয়ার

আগে দেবী ষষ্ঠী কে পূজো দেওয়া। এই মাঠে দেবীর পূজা করার পরেই এই

জুয়াড়ি মেলা শুরু হয়। জুয়া খেলার এই মেলা সারা দিন চলে। সেখানে

যাওয়া লোকেরা বিশ্বাস করে যে এই মেলায় জুয়া খেললে বছরের পর বছর

ধরে তাদের বাড়িতে আনন্দ এবং শান্তি আসবে। বর্তমান প্রজন্মের

মানুষও প্রাচীন কিংবদন্তিতে বিশ্বাসী। পরিবারগুলি এখানে আসার জন্য

আগে থেকে প্রস্তুতি নেয়। এই প্রাচীন চিন্তার কারণে মহিলারাও এই মেলায়

জুয়া খেলেন। এই জুয়ারি মেলায় মহিলাদের প্রবেশ বা অংশগ্রহণের ইতিহাস

কেউ জানে না। লোকদের মতে, তারা তাদের পূর্ব পুরুষদের সাথেও একই

আচরণ করেছিলেন। তারা নিজেদের বড়দের কাছে শুনেছেন যে মহিলাদের

মেলায় জুয়া খেলতে হয় এবং বাড়ি ফিরতে হয়। মহিলাদেরও এই জুটিতে

অংশ নিতে হবে। তারা এখনও এই বিধি অনুসরণ করে আসছেন।

জুয়া খেলার সাথে পৌরাণিক কাহিনীও যুক্ত

মেলার আয়োজক কমিটির সাথে জড়িত সিনিয়র সদস্য বিনোদ

আগরওয়াল জানান, এই অঞ্চল থেকে এক প্রাচীন সময়ে বেহুলা নিজের

স্বামী লখিন্দরের শব নিয়ে যাচ্ছিলেন। কলার ভেয়ার স্বামীর মৃতদেহ

থাকার সময় তিনি এই স্থানে দেবী ষষ্ঠীর পূজা করেন। এই পূজো করে তিনি

নিজের স্বামীর জীবন ভিক্ষ্য চান।

সেই থেকেই পুজোর আয়োজন নিয়মিত হয়ে উঠছে এর বিশেষ তারিখটি

মুলা ষষ্টী থাকে। এখানে কেবল এই দিনেই মাটিতে পুজোর আয়োজন।

স্থানীয় মিষ্টি লেউড়ি এখানে পূজার ভোগ হিসাবে দেওয়া হয়। এই

মিষ্টান্নটি অন্য কোথাও তৈরি হয় না। এই ভোগ নিবেদনের পরে জুয়াডী

মেলা শুরু হয়। এই বারেও এই মেলায় অনেকে জুয়া খেলতে এসেছিলেন।

এই ব্যাপারে প্রশ্ন করা হলে মহিলারা হেসে স্বীকার করেছেন যে আজও এই

জুটিতে অংশ নিতেই এসেছেন। এইখানে জুয়া খেলা সামাজিকভাবে স্বীকৃত।

সুতরাং তাদেরও এখানে জুয়া খেলতে দ্বিধা নেই। মহিলাদের মতে তারা এই

জুয়ার জন্য খুব অল্প অর্থ ব্যয় করে তবে এটি যদি বছরের পর বছর ধরে

পরিবারের শান্তি বজায় রাখে তবে তার চেয়ে বড় বিষয়ও আছে। তাছাড়া

নিজের স্বামী এবং পরিবারের অন্য লোকেদের সামনে এই লোকাচার করতে

তাঁদের কোন দ্বিধা হয় না।

অনেক আগে ঘন বনে পূজো করতে আসতেন মহিলারা

লোক কথায় অনুসারে প্রাচীনকালে এখানে ঘন বন ছিল। পাশ দিয়ে বেহুলা

নদীও প্রবাহিত। এখানে মহিলাদের কল্যাণ জন্য উপাসনা করতেন হয়তো

সেই সময়ে মহিলারা উপাসনায় ব্যস্ত থাকেন। তাঁর সাথে আসা পুরুষরা

সময় কাটানোর জন্য মাঠে জুয়া খেলতেন। জুয়া খেলার অনুশীলন সেখান

থেকেই শুরু হয়েছিল। তবে এটি কেবল গল্প। এখানে জুয়া খেলা কেন হয়

এবং এখানে মহিলাদের আসার প্রয়োজন কেন? তার কোন তথ্যগত

প্রমাণ পাওয়া যায় নি।

[subscribe2]

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ব্রেকিং নিউজ
Bengali English Hindi