1. mistupoddar056@gmail.com : Bangla : Bangla
  2. admin@jatiyokhobor.com : jatiyokhobor :
  3. suhagranalive@gmail.com : Suhag Rana : Suhag Rana
মঙ্গলবার, ১১ মে ২০২১, ০১:২৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
ধন্যবাদ জানাই  গুগলকে আমাদের প্রচেষ্টাকে সম্মান করার জন্য পৃথিবীর অভ্যন্তরীণ গতিবিধি থেকে নতুন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বিজ্ঞানিরা করোনার ভ্যাকসিনের বিশ্বব্যাপী বিতরণ শুরু দ্রুত ভ্রমণের জন্য মহাকাশে হাই বে পথও আছে ভিটামিন ডি করোনার মৃত্যুর ঝুঁকি হ্রাস করে গবেষণায় জানা গেছে জীবনের অনেক চিহ্ন এখনও মঙ্গল গ্রহের পরিবেশে বিদ্যমান অক্সিজেনের সাহায্যে বয়সকে মাত দিতে চলেছেন বিজ্ঞানিরা এর ডানার বিস্তার ছিল বিশ ফুট ছিলো প্রাগতৈহাসিক যুগে গুরু এবং শনি একে অপরের নিকটে আসছে হত্যা চেষ্টা মামলার আসামী নিশির সাথে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সেক্রেটারি লেখকের অনৈতিক সম্পর্কের অভিযোগ রাশিয়ান বিজ্ঞানী কে হত্যা করা হয়েছে করোনার ভ্যাকসিনের সাথে যুক্ত ছিলেন গুদামে সরবরাহিত চিনি জেলা প্রশাসক অফিসে জানানো হবে মানসিক হয়রানি তদন্ত এবং দুই ব্যক্তির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া ভারতীয় সেনাবাহিনীর ইউনিফর্ম পরিবর্তন করা হবে চিকিত্সার অভাবে মারা গেল লাপুংয়ের কেওয়াত টালির দরিদ্র শ্রমিক

মানুষের মস্তিষ্কের প্রতিটি প্রোটিন এতদিনে চেনা গেছে

Reporter Name
  • পোষ্ট করেছে : Tuesday, 10 March, 2020
  • ২৬ জন দেখেছেন
মানুষের মস্তিষ্কের প্রতিটি প্রোটিন এতদিনে চেনা গেছে
  • মস্তিষ্কের বিকার দুর করতে দুর্দান্ত সাফল্য এসেছে

  • মানুষের ব্রেন আসলে দেহের সবচেয়ে জটিল অঙ্গ

  • একটানা গবেষণা 17 বছর পরে ফলাফল এসেছে

  • এর পরে ব্রেনকে আরও ভাল করে জানার চেষ্টা

প্রতিনিধি

নয়াদিল্লি: মানুষের মস্তিষ্কের ভিতরে কি কাজ কখন হয় সেটা এখনও ভাল করে জানা হয় নি।

বর্তমান প্রজন্মের বিজ্ঞানীদের কাছেও মানুষের ব্রেন একটি আকর্ষণীয় ধাঁধা হয়ে দাঁড়িয়েছে।

বিশ্বের চিকিত্সা বিজ্ঞান এটিকে বোঝার এবং উন্নতির দিকে তেমন অগ্রগতি করতে পারেনি।

এই ক্রমটি গবেষণা করা অবিরত রয়েছে। এখন মানুষের মস্তিষ্কের ভিতরে থাকা প্রতিটি প্রোটিন

সনাক্ত করা হয়েছে। এটা স্পষ্ট যে মানব মস্তিষ্কের ভিতরে এই প্রোটিনগুলির ভূমিকা কী তা

বোঝার পরে বিজ্ঞানীরা মানব মস্তিষ্ককে আরও ভালভাবে বুঝতে সক্ষম হবেন। আশা করি, এই

সমস্যা সমাধানের পরে মানসিক রোগ বা জখমের চিকিত্সা আরও ভাল হবে।

এটি প্রমাণিত সত্য যে মানুষের মস্তিষ্ক দেহের সবচেয়ে কঠিন কাঠামো। এর বিভিন্ন অংশের

কাজ কী, বৈজ্ঞানিক বোঝাপড়া সেখানে পৌঁছেছে। তবে এর বাইরেও খুব ধীরে ধীরে কাজ

চলছে। এই গবেষণার গতিও ধীর কারণ মানব মস্তিষ্কে লক্ষ লক্ষ নিউরনের ভূমিকা কী তা

বোঝা সহজ কাজ নয়। নতুন মস্তিষ্কের অ্যাটলাসে, মানুষের মস্তিষ্কের 1900 টি নমুনার মধ্যে 27

টির মতো মস্তিষ্কের অঞ্চল সনাক্ত করা গেছে যা মানব দেহের সমস্ত কাঠামো নিয়ন্ত্রণ করে।

মানুষের মস্তিষ্কের শক্তিশালী কোষগুলি খুব সূক্ষ্ম

এই কাজ সুইডেনের একটি পরীক্ষাগারে অগ্রসর হয়েছে। লাইফ ল্যাব সায়েন্সে এই কাজের

পাশাপাশি এর কৃতিত্বগুলি সম্পর্কে তথ্য দেওয়া হয়। এই ইনস্টিটিউটের পাশাপাশি কেটিএইচ

রয়্যাল ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজি এবং ক্যারোলিনস্কা ইনস্টিটিউট, স্টকহোম এবং

ইউপ্পসালা বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরাও এই কাজে যুক্ত রয়েছেন। এছাড়াও, চীন এবং

ডেনমার্কের বিশ্ববিদ্যালয়গুলির বিজ্ঞানীরা এই প্রকল্পের সাথে জড়িত। তাদের সবারই এই একটি

প্রকল্পের বিভিন্ন অংশে গবেষণা চালানোর জন্য দায়বদ্ধ। এই সম্মিলিত প্রচেষ্টার ফলস্বরূপ মানব

মস্তিষ্কের মধ্যে থাকা সমস্ত ধরণের প্রোটিন সনাক্ত করা হয়েছে।

গবেষণা নিশ্চিত করেছে যে চিনি এবং ইঁদুরের মস্তিষ্কের পরেও মানুষের মস্তিষ্কের গঠন একদম

আলাদা তথ্যটি দিয়েছেন কেটিএইচ রয়্যাল ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক ম্যাথিয়ার উলহেন। তিনি

হিউম্যান প্রোটিন আটলাস এফোর্ট প্রজেক্টের ডিরেক্টরও রয়েছেন। মানব মস্তিষ্কের বিভিন্ন

কাঠামো ছাড়াও একাধিক প্রোটিন মিশ্রিত করে বিভিন্ন ক্রিয়াও করা হয়, এটি নিশ্চিত হয়ে

গেছে। সুতরাং, প্রতিটি প্রোটিনের ক্ষমতা এবং ভূমিকা নির্ধারণের কাজটি এখন সতর্কতার সাথে

অনুসরণ করা হচ্ছে। এটা পরিষ্কার হয়ে গেছে যে এর মধ্যে কিছু প্রোটিন মানসিক অবস্থাকেও

নিয়ন্ত্রণ করে।

প্রোটিনগুলি পৃথকভাবে এবং একসাথে কাজ করে

গবেষণার সাথে যুক্ত আরেক বিজ্ঞানী ডঃ এভেলিনা জাজোস্টাত বলেছেন যে বিভিন্ন ধরণের

বিভিন্ন তহবিল বিভিন্ন অংশে বিভিন্ন উপায়ে কাজ করে তা দেখতে আকর্ষণীয় হয়েছে। এই

ভূমিকাটি নিকটবর্তী অন্যান্য অঙ্গ দ্বারা নির্ধারিত হয়। তিনি বলেছিলেন যে মানুষের মস্তিষ্কের

ভিতরে উপস্থিত প্রোটিনগুলি সেখানকার কোষ থেকে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন কাজ করে।

সুতরাং, বিভিন্ন স্বাক্ষরকারী রুটও রয়েছে। এই রুটের অনেকগুলি দ্বিমুখী বার্তাগুলিও বিনিময়

করে। অতএব, প্রত্যেককে বোঝা এত সহজ কাজ হবে না। উদাহরণস্বরূপ, তিনি বলেছিলেন যে

জ্যোতির্বিজ্ঞানগুলি মস্তিষ্কের অভ্যন্তরে বাহ্যিক ক্রিয়াকলাপ সম্পর্কে ইঙ্গিত দেয় তবে এই কোষ

মানব লিভারের অভ্যন্তরে রক্ত পরিষ্কার করার ক্ষেত্রে প্রধান ভূমিকা পালন করে।

বিজ্ঞানীদের আবিষ্কারের সম্মিলিত উপসংহারটি হ’ল মস্তিষ্কের অভ্যন্তরে ক্ষুদ্র মাইক্রো সহ আসলে

ন্যানো-ট্রান্সমিটারের একটি নেটওয়ার্ক রয়েছে। যা ইঁদুরের মস্তিষ্কের গঠন থেকে আলাদা। এই

ন্যানো ট্রান্সমিটারগুলির ভূমিকা মানব মস্তিষ্কে উপস্থিত প্রোটিনগুলিও নির্ধারণ করে। এক বা

একাধিক ন্যানো ট্রান্সমিটার একসাথে একাধিক টাস্ক সম্পাদন করতে পারে। অতএব, প্রত্যেকের

সম্ভাবনা মূল্যায়ন করা সময় সাপেক্ষ।

দীর্ঘ প্রচেষ্টা শেষে কাজটি এখন শেষ হয়েছে

বিজ্ঞানীরা 2003 সালে এই প্রকল্পে কাজ শুরু করেন। গবেষণার শুরুতে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল

যে এই স্কিমের উদ্দেশ্য হ’ল মানব মস্তিষ্কের অভ্যন্তরে প্রোটিন কোষ নির্ধারণ করা। এই কাজটি

এত দিন অব্যাহত গবেষণার পরে শেষ হয়েছে। প্রোটিনগুলি সিদ্ধান্ত নেওয়ার পরে, তাদের

ভূমিকা নিয়ে গবেষণা মানব মস্তিষ্ককে বোঝার ক্ষেত্রে আরও সহায়তা করবে। তবে এটি

তাত্ক্ষণিক কাজ হবে না। এতে আবার নতুন করে সময় লাগবে

[subscribe2]

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ব্রেকিং নিউজ
Bengali English Hindi