1. mistupoddar056@gmail.com : Bangla : Bangla
  2. admin@jatiyokhobor.com : jatiyokhobor :
  3. suhagranalive@gmail.com : Suhag Rana : Suhag Rana
মঙ্গলবার, ১১ মে ২০২১, ১২:৫৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
ধন্যবাদ জানাই  গুগলকে আমাদের প্রচেষ্টাকে সম্মান করার জন্য পৃথিবীর অভ্যন্তরীণ গতিবিধি থেকে নতুন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বিজ্ঞানিরা করোনার ভ্যাকসিনের বিশ্বব্যাপী বিতরণ শুরু দ্রুত ভ্রমণের জন্য মহাকাশে হাই বে পথও আছে ভিটামিন ডি করোনার মৃত্যুর ঝুঁকি হ্রাস করে গবেষণায় জানা গেছে জীবনের অনেক চিহ্ন এখনও মঙ্গল গ্রহের পরিবেশে বিদ্যমান অক্সিজেনের সাহায্যে বয়সকে মাত দিতে চলেছেন বিজ্ঞানিরা এর ডানার বিস্তার ছিল বিশ ফুট ছিলো প্রাগতৈহাসিক যুগে গুরু এবং শনি একে অপরের নিকটে আসছে হত্যা চেষ্টা মামলার আসামী নিশির সাথে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সেক্রেটারি লেখকের অনৈতিক সম্পর্কের অভিযোগ রাশিয়ান বিজ্ঞানী কে হত্যা করা হয়েছে করোনার ভ্যাকসিনের সাথে যুক্ত ছিলেন গুদামে সরবরাহিত চিনি জেলা প্রশাসক অফিসে জানানো হবে মানসিক হয়রানি তদন্ত এবং দুই ব্যক্তির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া ভারতীয় সেনাবাহিনীর ইউনিফর্ম পরিবর্তন করা হবে চিকিত্সার অভাবে মারা গেল লাপুংয়ের কেওয়াত টালির দরিদ্র শ্রমিক

স্কলারশিপ পাওয়ার জন্য জাল নথি চক্রের বিষয় জানা গেছে

Reporter Name
  • পোষ্ট করেছে : Saturday, 25 January, 2020
  • ২৭ জন দেখেছেন
স্কলারশিপ পাওয়ার জন্য জাল নথি চক্রের বিষয় জানা গেছে
  • অনলাইন আবেদন করার সময় একশর বেশি ঘটনা

  • জাল করার ঘটনা নজরে এসেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের

  • কোন বড় চক্র জড়িত কিনা সেই নিয়ে খোঁজ খবর শুরু

মালদাঃ স্কলারশিপ পাওয়ার জন্য অনলাইনে আবেদনকারী একশ’রও

বেশি জাল নথি চক্রের বিষয়টি নজরে এসেছে গৌড়বঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়

কর্তৃপক্ষের। এই নিয়ে রীতিমতো চক্ষু চড়কগাছ হয়ে গিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়

কর্তৃপক্ষের। মধ্যশিক্ষা পর্ষদের মাধ্যমিকের পরীক্ষার মার্কশীট, গৌড়বঙ্গ

বিশ্ববিদ্যালয় নামে স্নাতক স্তরের মার্কসিট, সংশ্লিষ্ট এলাকার বিডিও’র

রেসিডেন্সিয়াল সার্টিফিকেটের একাধিক গুরুত্বপূর্ণ কাগজই নাকি জাল

তৈরি করে স্কলারশিপের জন্য জমা দেওয়া হয়েছিল অনলাইনে। আর সেই

বিষয়টি প্রথম নজরে আসে গৌড়বঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের ডেভলপমেন্ট

অফিসার রাজিব পুততুন্ডর। এরপরই জানানো হয় বিশ্ববিদ্যালয়ের

উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে। যে সব স্কলারশিপ পাওয়ার ক্ষেত্রে অনলাইনে

আবেদন করা হয়েছিল সেই সব ছাত্র-ছাত্রীদের কোন হদিস পাওয়া যায় নি।

ফলে সরকারি স্কলারশিপ হাতানোর একটি বড় চক্র মালদায় সক্রিয় হয়েছে

উঠেছে তা এই ঘটনায় প্রমাণ করে দিয়েছে।

স্কলারশিপ নেবার রকম দেখে সন্দেহ অফিসারের

গৌড়বঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় ডেভলপমেন্ট অফিসার রাজীব পুততুন্ড  বললেন

আবেদন করা ওইসব নথি দেখে আমার সন্দেহ হয়। এরপরই সেগুলি

যাচাই করতে গিয়ে দেখি এরকম কোন ছাত্র-ছাত্রীর প্রকৃত ভাবে নেই।

তাদের সার্টিফিকেটগুলো সম্পূর্ণ জাল। তারপরে বিষয়টি নিয়ে উচ্চ

পর্যায়ের জানানো হয়। পাশাপাশি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য কেউ পুরো

ঘটনা সম্পর্কে জানানো হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গিয়েছে, বিজলী

মণ্ডল, অনিতা সাহা, তুফান বসাক, অনিল মণ্ডল এরকম এমন আরও

অসংখ্য পড়ুয়ার নামে স্বামী বিবেকানন্দ স্কলারশিপ পাওয়ার আবেদন জমা

পড়েছে গৌড়বঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ে। আবেদনও জমা হয়েছে অনলাইনে

প্রতিটি আবেদন পত্রের সঙ্গে নিয়ম মেনে যুক্ত করা হয়েছে নানাবিধ

সরকারি নথি।  গৌড়বঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে আরও জানা গিয়েছে,

আবেদনের সঙ্গে যেসব নথি দেওয়া হয়েছে তার মধ্যে রয়েছে (১) মধ্যশিক্ষা

পর্ষদের নামে মাধ্যমিক পরীক্ষার মার্কশিট, (২)গৌড়বঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের

নামে স্নাতক স্তরের পরীক্ষার মার্কশিট, (৩) বিডিও অফিসের নামে

রেসিডেনশিয়াল এবং ইনকাম সার্টিফিকেট, (৪) আধার কার্ড , (৫) ব্যাঙ্কের

পাশ বই-এর জেরক্স। এত সব নথিপত্র দেওয়ার পর বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ

সঙ্গে সঙ্গে আবেদনের ছাড়পত্র দেবে এটাই স্বাভাবিক নিয়ম। অনলাইনে

বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সবুজ সংকেত দিলে উপভোক্তার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে

জমা হবে বছরে চব্বিশ হাজার টাকা। প্রত্যেক ছাত্র দুই বছরে পাবেন

মোট আটচল্লিশ হাজার টাকা। কিন্তু, নথিপত্র খতিয়ে দেখতে গিয়েই চক্ষু

চড়কগাছ গৌড়বঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের। দেখা যাচ্ছে একের পর এক নথিপত্র

জাল। বিশ্ববিদ্যালয়ের এক কর্তা জানিয়েছেন, স্কলারশিপ পাওয়ার ক্ষেত্রে

আবেদনকারীদের নথি যাচাই করতে গিয়েই প্রথমে দেখা যায়

বিশ্ববিদ্যালয়ের দাখিল করা মার্কশিট ভুয়ো। এরপর দেখা গিয়েছে ওই

নামের কোনো পড়ুয়াই নেই গৌড়বঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ে। আরও খতিয়ে

দেখতে গিয়ে নজরে পড়েছে ‘ভুয়ো পড়ুয়ার’ ছবির সঙ্গে আধার ও ব্যাঙ্ক

অ্যাকাউন্টের ছবির পার্থক্য। অথাৎ স্কলারশিপ হাতানোর চক্রের

সক্রিয়তা স্পষ্ট। এমন প্রায় ১০০’র বেশি নথি পেয়েছে গৌড়বঙ্গ

বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ । যা নিয়ে তদন্ত শুরু হয়েছে।

জাল চক্র জানা যাবার পরে পড়ুয়াদের মধ্যে আতঙ্ক

এদিকে এই জালচক্র ঘটনার বিষয়টি জানাজানি হতেই বিশ্ববিদ্যালয়ের

পড়ুয়াদের মধ্যে আতঙ্কও ছড়িয়েছে। তাঁদের অভিযোগ, এরকম জাল চক্র

সক্রিয় থাকলে প্রকৃত ছাত্রছাত্রীরা এই সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত হওয়ার

সম্ভাবনা রয়েছে। তাই গোটা ঘটনাটি নিয়ে পূর্ণাঙ্গ তদন্ত করে প্রয়োজনীয়

ব্যবস্থার দাবিও জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র ছাত্রীরা। গৌড়বঙ্গ

বিশ্ববিদ্যালয়ের ইন্সপেক্টর অফ কলেজেস্ অপূর্ব চক্রবর্তী জানিয়েছেন,

এরকম শতাধিক জাল নথি পাওয়া গিয়েছে। পুরো বিষয়টি তদন্ত করে দেখা

হচ্ছে। পাশাপাশি এই বিষয়টি নিয়ে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

[subscribe2]

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ব্রেকিং নিউজ
Bengali English Hindi