1. mistupoddar056@gmail.com : Bangla : Bangla
  2. admin@jatiyokhobor.com : jatiyokhobor :
  3. suhagranalive@gmail.com : Suhag Rana : Suhag Rana
সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ১২:২৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
ধন্যবাদ জানাই  গুগলকে আমাদের প্রচেষ্টাকে সম্মান করার জন্য পৃথিবীর অভ্যন্তরীণ গতিবিধি থেকে নতুন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বিজ্ঞানিরা করোনার ভ্যাকসিনের বিশ্বব্যাপী বিতরণ শুরু দ্রুত ভ্রমণের জন্য মহাকাশে হাই বে পথও আছে ভিটামিন ডি করোনার মৃত্যুর ঝুঁকি হ্রাস করে গবেষণায় জানা গেছে জীবনের অনেক চিহ্ন এখনও মঙ্গল গ্রহের পরিবেশে বিদ্যমান অক্সিজেনের সাহায্যে বয়সকে মাত দিতে চলেছেন বিজ্ঞানিরা এর ডানার বিস্তার ছিল বিশ ফুট ছিলো প্রাগতৈহাসিক যুগে গুরু এবং শনি একে অপরের নিকটে আসছে হত্যা চেষ্টা মামলার আসামী নিশির সাথে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সেক্রেটারি লেখকের অনৈতিক সম্পর্কের অভিযোগ রাশিয়ান বিজ্ঞানী কে হত্যা করা হয়েছে করোনার ভ্যাকসিনের সাথে যুক্ত ছিলেন গুদামে সরবরাহিত চিনি জেলা প্রশাসক অফিসে জানানো হবে মানসিক হয়রানি তদন্ত এবং দুই ব্যক্তির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া ভারতীয় সেনাবাহিনীর ইউনিফর্ম পরিবর্তন করা হবে চিকিত্সার অভাবে মারা গেল লাপুংয়ের কেওয়াত টালির দরিদ্র শ্রমিক

আন্তর্জাতিক আদালত বলেছে, মিয়ানমার রোহিঙ্গা গণহত্যা বন্ধ করুক

Reporter Name
  • পোষ্ট করেছে : Friday, 24 January, 2020
  • ৯৬ জন দেখেছেন
আন্তর্জাতিক আদালত বলেছে, মিয়ানমার রোহিঙ্গা গণহত্যা বন্ধ করুক

হেগ: আন্তর্জাতিক আদালত মিয়ানমারের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান

নিয়েছে। সাম্প্রতিক সময়ে প্রথমবারের মতো মিয়ানমারের সরকারকে এই

জাতীয় আন্তর্জাতিক নির্দেশনার দ্বারা অপমান করা হয়েছে। আইসিজে

বলেছে যে মিয়ানমার এ পর্যন্ত এ পরিস্থিতি উপেক্ষা করার জন্য বিশাল

ভুল করেছে। তাকে এখনই এ বিষয়ে সুনির্দিষ্ট পদক্ষেপ নিতে হবে।

আন্তর্জাতিক আদালত এই বিষয়ে দায়ের করা আন্তর্জাতিক অভিযোগের

শুনানি শেষে এই নির্দেশনা জারি করেছে। এ বিষয়ে দায়ের করা আবেদনে

ছয়টি বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি করা হয়েছে। যাতে সেখানে রোহিঙ্গা

মুসলমানদের গণহত্যা  প্রক্রিয়াটি অবিলম্বে বন্ধ করা যায়। এছাড়াও,

অতীতে সহিংসতার চিহ্নগুলি এবং প্রমাণগুলি অপসারণে নিষেধাজ্ঞা ছিল।

আন্তর্জাতিক আদালতের জজ ইউসুফ বলেছিল যে এখন পর্যন্ত প্রাপ্ত প্রমাণ

থেকে প্রমাণ পাওয়া যায় যে মিয়ানমার এই দিকটিতে গুরুত্বের সাথে

বিবেচনা করে নি। সুতরাং, এই ধরণের সহিংসতা বন্ধ করতে তাকে পুরো

শক্তি নিয়ে পদক্ষেপ নিতে হবে। একটি দেশ হিসাবে, এটি আন্তর্জাতিক শর্ত

মেনে চলতে হয়।

আন্তর্জাতিক আদালত সর্বসম্মতিক্রমে সিদ্ধান্ত 

মিয়ানমারের পক্ষে যুক্তি দেওয়া হয়েছিল যে তার সেনাবাহিনী এই ধরণের

কোনও হিংসাত্মক পদক্ষেপ নেয়নি বা তার সেনাবাহিনীও এই জাতীয়

ষড়যন্ত্রের কোনও অংশ ছিল না। এসব ক্ষেত্রে নেতা ও নোবেল বিজয়ী অং

সান সু চির ভূমিকার ব্যাপক সমালোচনা হয়েছে। তিনি নিজের দেশের

সেনার পক্ষ রাখতে এখানে এসেছিলেন। অনেক দেশ তাদের দেওয়া

সম্মানও প্রত্যাহার করে নিয়েছে। এর পরেও রোহিঙ্গা ইস্যুতে সেখানকার

সরকারের দৃষ্টিভঙ্গিতে কোনও উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন হয়নি। এই কারণে

আন্তর্জাতিক আদালত বলেছে যে এর নির্দেশাবলী কোন স্তরে অনুসরণ করা

হয়েছে, তা চার মাসের মধ্যে আবার পর্যালোচনা করা হবে। আদালতের এই

সিদ্ধান্তকে অনেক আইন বিশেষজ্ঞই প্রশংসা করেছেন। প্রত্যেকে বিশ্বাস করে

যে মিয়ানমার রোহিঙ্গা ইস্যুতে একেবারেই দায়িত্বজ্ঞানহীন অবস্থান

নিয়েছে। ফলস্বরূপ, লক্ষ লক্ষ রোহিঙ্গা শরণার্থী এখনও বাংলাদেশের

শরণার্থী শিবিরগুলিতে বসবাস করছে, অন্য কয়েক মিলিয়ন অন্যত্র

পালিয়ে গেছে। আদালতের নির্দেশনা থেকে এটি স্পষ্ট হয়ে গেছে যে,

আইসিজে সেখানকার উন্নয়নের বিষয়ে নিবিড় নজর রাখবে। আদালতে

সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত গ্রহণের কারণে, এর গুরুত্বের বিষয়টি বিশ্বজুড়ে ভিন্ন

দৃষ্টিকোণ থেকে বিচার করা হচ্ছে।

রোহিঙ্গা নিয়ে আদালতের রায় মানবতার বিজয়

ঢাকা প্রতিনিধির খবর অনুসারে রোহিঙ্গাদের নিয়ে আন্তর্জাতিক

ন্যায়বিচার আদালত (আইসিজে) যে রায় দিয়েছে, তাকে মানবতার বিজয়

হিসেবে দেখছেন, বাংলাদেশের বিদেশন্ত্রী ড. একে আব্দুল মোমেন।

বৃহস্পতিবার রায়ের পর প্রতিক্রিয়ায় মন্তব্য করেন ড মোমেন।

বিদেশমন্ত্রক সূত্র জানায়, আইসিজে যে রায় দিয়েছে তা সমস্ত জাতি ও

মানবাধিকারকর্মীদের জন্য এই রায় একটি মাইলফলক। গাম্বিয়া, ওআইসি,

রোহিঙ্গা এবং অবশ্যই বাংলাদেশের জন্যও একটি বিজয়। এছাড়া এই রায়

মানবতার জননী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্য ঈশ্বরের আশীর্বাদ।

মোমেন বলেন, আইসিজের বিচারকদের সর্বসম্মত এই রায়ে মিয়ানমারকে

চারটি অন্তর্বতী পদক্ষেপ নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে

রোহিঙ্গাদের নিয়ে কী ব্যবস্থা নেওয়া হলো, তা জানাতে মিয়ানমারকে

আগামী চার মাসের মধ্যে একটি প্রতিবেদন জমা দিতে বলেছে আদালত।

আর প্রতি ছয়মাস পর পর মিয়ানমারের নেওয়া পদক্ষেপগুলো জানাতে

প্রতিবেদন জমা দিতে হবে। মিয়ানমারের দাবিও প্রত্যাখ্যান করে আদালত

রোহিঙ্গা শব্দটি ব্যবহার করেছেন। মিয়ানমারকে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে

গণহত্যা ও নৃশংসতা বন্ধ করতেও বলেছেন আদালত। এ রকম রায়ে আশা

করি বিশ্বে জাতিগত নিপীড়ন ও গণহত্যার পুনরাবৃত্তি বন্ধ হয়ে যাবে।

রোহিঙ্গা ইস্যুতে গাম্বিয়ার দায়ের করা মামলায় বৃহস্পতিবার মিয়ানমারের

বিরুদ্ধে এই রায় এল।

[subscribe2]

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ব্রেকিং নিউজ
Bengali English Hindi