1. mistupoddar056@gmail.com : Bangla : Bangla
  2. admin@jatiyokhobor.com : jatiyokhobor :
  3. suhagranalive@gmail.com : Suhag Rana : Suhag Rana
বুধবার, ১৯ মে ২০২১, ১২:৩৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
ধন্যবাদ জানাই  গুগলকে আমাদের প্রচেষ্টাকে সম্মান করার জন্য পৃথিবীর অভ্যন্তরীণ গতিবিধি থেকে নতুন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বিজ্ঞানিরা করোনার ভ্যাকসিনের বিশ্বব্যাপী বিতরণ শুরু দ্রুত ভ্রমণের জন্য মহাকাশে হাই বে পথও আছে ভিটামিন ডি করোনার মৃত্যুর ঝুঁকি হ্রাস করে গবেষণায় জানা গেছে জীবনের অনেক চিহ্ন এখনও মঙ্গল গ্রহের পরিবেশে বিদ্যমান অক্সিজেনের সাহায্যে বয়সকে মাত দিতে চলেছেন বিজ্ঞানিরা এর ডানার বিস্তার ছিল বিশ ফুট ছিলো প্রাগতৈহাসিক যুগে গুরু এবং শনি একে অপরের নিকটে আসছে হত্যা চেষ্টা মামলার আসামী নিশির সাথে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সেক্রেটারি লেখকের অনৈতিক সম্পর্কের অভিযোগ রাশিয়ান বিজ্ঞানী কে হত্যা করা হয়েছে করোনার ভ্যাকসিনের সাথে যুক্ত ছিলেন গুদামে সরবরাহিত চিনি জেলা প্রশাসক অফিসে জানানো হবে মানসিক হয়রানি তদন্ত এবং দুই ব্যক্তির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া ভারতীয় সেনাবাহিনীর ইউনিফর্ম পরিবর্তন করা হবে চিকিত্সার অভাবে মারা গেল লাপুংয়ের কেওয়াত টালির দরিদ্র শ্রমিক

প্রতিমার পেট কেটে বের করা হয়েছিলো কিশোরীকে তাই পেট কাটি দুর্গাপূজো

Reporter Name
  • পোষ্ট করেছে : Friday, 4 October, 2019
  • ২৩ জন দেখেছেন
প্রতিমার পেট কেটে বের করা হয়েছিলো কিশোরীকে তাই পেট কাটি দুর্গাপূজো

মুর্শিদাবাদঃ প্রতিমার পেট কেটে জীবিত কিশোরীকে বের করা হয়েছিলো।

এই গল্প আজও শোনা যায়। তাই রঘুনাথগঞ্জের গদায়পুরের ইতিহাস বিজড়িত

‘পেটকাটি দুর্গা’ কে ঘিরে উৎসাহ আর উদ্দীপনার আজও অন্ত নেই দূর দূরান্ত থেকে আসা দর্শনার্থীদের মধ্যে।

শতাব্দী প্রাচীন গদায়পুরের ব্যানার্জী পরিবারের এই দুর্গা পুজো এখন পরিণত হয়েছে সার্বজনীনে।

ভক্তদের বিশ্বাসে জাগ্রত এই দুর্গা পুজোয় মনবাঞ্ছনা পূরণে গ্রামের মেঠ রাস্থা ধারে পুজোর কয়টা দিন দিনভর ঢল নামে মানুষের।

প্রাচীন ধর্মীয় রীতিমেনে “পেটকাটি দুর্গা”র কাঠামোয় মাটির প্রলেপ দেওয়ার পরই এলাকার বাকি পরিবারের প্রতিমার মূর্তি গড়ার কাজ শুরু হয়।

জঙ্গিপুর মহকুমার অন্তর্গত রঘুনাথগঞ্জ শহরের উপকণ্ঠ থেকে প্রায় ৮ কিলোমিটার দূরের গ্রাম আহিরণ।

ঠিক তার ডান পাশের ইঁটের রাস্তা ধরে যেতেই মেলে এই গদায়পুর এলাকা।

গ্রামের পাস দিয়ে বয়ে গেছে আখরি নদী।

সুপ্রাচীন সেই কাল থেকেই প্রথা মেনে এই নদীর বুক থেকে মাটি তুলে এনে শুরু হয় পেটকাটি দুর্গা মূর্তি প্রতিমার তৈরির কাজ।

প্রায় ন’ফুট দৈর্ঘ্যের ও তেরো ফুট চওড়ার এই সাবেকি দেবী মূর্তির মাপও প্রতি বছর থাকে একই।

কয়েকশো বছর আগে এই পেটকাটির পুজোর সূচনা হয় তৎকালীন ব্যানার্জী পরিবার হাত ধরেই।

আর তার পর থেকেই এই পুজোর সাথে জড়িয়েছে নানান ইতিহাস।

এই দুর্গাপুজোর দেখভালের জন্য ব্যানার্জী পরিবারের কর্তারা নিয়োগ করেন এক দরিদ্র ব্রাহ্মণ কে ।

সেই ব্রাহ্মন তাঁর স্ত্রী ও একমাত্র কিশোরী মেয়ে কে থাকবার ব্যাবস্থা করে দেয় ব্যানার্জী পরিবার ।

সেই সময় কথিত আছে কোন এক বছরে দুর্গাপুজোর সন্ধি পুজোর সময় কিশোরীকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না।

মেয়ে কে খুঁজে না পেয়ে পুরোহিত ও তাঁর স্ত্রী দেবীর কাছে হাপিত্যেশ করে পড়ে থাকেন ।

অবশ্য তাতে ফলও মেলে।

প্রতিমার স্বপ্ন থেকে কিশোরী মেয়েকে পাওয়া যায়

মা দুর্গা সেদিন ভোর রাতেই পুরোহিত ও তাঁর স্ত্রীকে স্বপ্ন দেখা দেহ।

আর সেখানেই মা বলেন, যে তিনি নিজেই ব্রাহ্মণ দম্পতির ওই ফুটফুটে কিশোরী মেয়েকে মন্দিরের আঙ্গিনায় দেখে মুগ্ধ হয়ে তিনি লোভে তাকে গিলে ফেলেছেন।

তাই দেবী নিদান ফিয়ে নির্দেশ দেন,সকলেই তাঁর পুজোয় ছাগ বলি দিয়ে তাঁর পেট কেটে তাদের মেয়েটিকে উদ্ধার করবে।

আর সেই মত স্বপ্নে দেওয়া দেবীর নির্দেশ মেনেই পরদিন দেবীর পেট কেটেই জীবন্ত কিশোরী উদ্ধার করা হয়।

সেই থেকে ব্যানার্জী পরিবারের পুজো পেটকাটি দুর্গা পুজো নামে লোকমুখে ছড়িয়ে পড়ে।

পেটকাটি দুর্গা মন্দিরের পেছনে আছে একটি পুকুর। দূর দূরান্ত থেকে পুণ্যার্থীরা পুজোর সময় দেবী দর্শনে আসেন।

অনেকে পুকুরে স্নান করেন। পুজো দেন।

এখন দেবীর পুজো হয়ে আসে সেই বর্গা দিয়ে তৈরি একটি বৃহদাকার ঘরেই।

সামনে খোলা দালানের ন্যায় জায়গা সেখানেই হাজারে হাজরে দাঁড়িয়ে থাকেন ভক্ত কুল।

স্থানীয় বাসিন্দা নিরঞ্জন ঘোষ বলেন,”দশমীর দিন এই আখরি নদীতে নৌকায় চাপিয়ে দেবীকে নিয়ে আসা হয় রঘুনাথগঞ্জের সদর ঘাটে।

তার পরে নিয়ে আসা হয় ভাগীরথী নদীর তীরে।সেখানেই পুরো শহরের সমস্ত প্রতিমা কেও আনা হয় বিসর্জনের জন্য।

একাদশীর দিন বেলা এগারোটা নাগাদ পেটকাটি দুর্গাকে বিসর্জন দেওয়া হয় জঙ্গিপুর শ্মশান ঘাটে”।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ব্রেকিং নিউজ
Bengali English Hindi