1. mistupoddar056@gmail.com : Bangla : Bangla
  2. admin@jatiyokhobor.com : jatiyokhobor :
  3. suhagranalive@gmail.com : Suhag Rana : Suhag Rana
শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:৩০ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
ধন্যবাদ জানাই  গুগলকে আমাদের প্রচেষ্টাকে সম্মান করার জন্য পৃথিবীর অভ্যন্তরীণ গতিবিধি থেকে নতুন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বিজ্ঞানিরা করোনার ভ্যাকসিনের বিশ্বব্যাপী বিতরণ শুরু দ্রুত ভ্রমণের জন্য মহাকাশে হাই বে পথও আছে ভিটামিন ডি করোনার মৃত্যুর ঝুঁকি হ্রাস করে গবেষণায় জানা গেছে জীবনের অনেক চিহ্ন এখনও মঙ্গল গ্রহের পরিবেশে বিদ্যমান অক্সিজেনের সাহায্যে বয়সকে মাত দিতে চলেছেন বিজ্ঞানিরা এর ডানার বিস্তার ছিল বিশ ফুট ছিলো প্রাগতৈহাসিক যুগে গুরু এবং শনি একে অপরের নিকটে আসছে হত্যা চেষ্টা মামলার আসামী নিশির সাথে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সেক্রেটারি লেখকের অনৈতিক সম্পর্কের অভিযোগ রাশিয়ান বিজ্ঞানী কে হত্যা করা হয়েছে করোনার ভ্যাকসিনের সাথে যুক্ত ছিলেন গুদামে সরবরাহিত চিনি জেলা প্রশাসক অফিসে জানানো হবে মানসিক হয়রানি তদন্ত এবং দুই ব্যক্তির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া ভারতীয় সেনাবাহিনীর ইউনিফর্ম পরিবর্তন করা হবে চিকিত্সার অভাবে মারা গেল লাপুংয়ের কেওয়াত টালির দরিদ্র শ্রমিক

ঝাড়খণ্ডে কেন্দ্রীয় সরকারের সিদ্ধান্তের কারণে বিরোধীরাও যথেষ্ট সুযোগ পাবে

Reporter Name
  • পোষ্ট করেছে : Saturday, 21 September, 2019
  • ৪৫ জন দেখেছেন
  • প্রস্তাবিত মহাজোট এখনও ঝাড়খণ্ডে প্রচুর পিছিয়ে রয়েছে
  • সন্থাল পরগণা নিয়ে রঘুবর দাসের চিন্তা বেড়েছে
  • জেএমএন আর জেভিএম নিজের কাজে লেগে পড়েছে
  • কংগ্রেস এবং আরজেডি নেতারা এগিয়ে যেতে চান না
প্রতিবেদক

রাঁচি: ঝাড়খণ্ডে কেন্দ্রীয় সরকারের সিদ্ধান্তে মহাজোট লাভ পেতে পারে।

বাকি দূই রাজ্যের সাথে এখানে নির্বাচন না হবার জন্য এখন বিজেপি বিরোধী দলগুলি নিজের নির্বাচনী প্রস্তুতি করার সময় পেয়েছে।

এইভাবে, ঝাড়খণ্ড মুক্তি মোর্চা এবং ঝাড়খণ্ড বিকাশ মোর্চা পুরো শক্তি নিয়ে মাঠে নেমেছে।

তবে কংগ্রেসের দলাদলি ঝামেলার পরে ডঃ অজয় কুমারকে অপসারণের পর থেকে দলের বড় নেতারা নির্বাচনী কর্মকাণ্ডে আগ্রহী নন।

অন্যদিকে, যেহেতু জাতীয় জনতা দল এখনও লালু প্রসাদের উপর সম্পূর্ণ নির্ভরশীল।

তাই তাঁর নির্বাচনের প্রস্তুতিও নগণ্য।

বিজেপি এবং বিশেষত রঘুবর দাস বিরোধী বিভক্তির ফসল তুলছেন।

ঝারখণ্ডে বিজেপির বড় নেতারা নিয়মিত আসছেন, তাঁদের জনসভা হচ্ছে।

রাজ্যের সব এলাকায় বিজেপির পুরো নির্বাচনী তৎপরতাও মুখ্যমন্ত্রী রঘুবর দাসের উপর।

তবে দলের ভিতরে যেমন টিকিট প্রার্থীদের সংখ্যা বাড়ছে, এই পরিস্থিতি কিছুটা জটিল বলে মনে হচ্ছে।

জেএমএম থেকে হেমন্ত সোরেন এবং জেভিএম থেকে বাবুলাল মারান্ডি পুরো শক্তি নিয়ে নিজ নিজ এলাকায় সক্রিয় রয়েছেন।

এবার, হেমন্তও বাজির বাজি খেলে রঘুয়ার দাসকে সান্থালে জড়িয়ে রেখেছেন।

বিজেপি এই কথা ভাল ভাবে জানে যে জেএমএম কে রুখতে হলে সন্থালে তাদের বেশি সিট জিততে হবে।

এই ফাঁদে বিজেপিকে রেখে নিজে হেমন্ত সোরেন পালামৌর মতন এলাকায় বেশ বড় বড় জনসভা করে সেখানের বিজেপিকে ভয় পাইয়ে দিতে পেরেছেন।

বিজেপি-র তরফ থেকে বেশ কিছূ জেএমএম এমএলএ কে নিজের পক্ষে আনার প্রচার করা হয়েছিলো।

সেই কথা জানার পরে তড়িঘড়ি করে জেএমএম নিজের সেই সব এমএলএদের হাজির করে সংবাদদাতা সম্মেলন করে বিজেপির বেলুন চুপসে দিয়েছে।

এগুলি বাদে, কংগ্রেসের সমস্ত বড় নেতা সর্বশেষ বিতর্ক থেকেই দলের নির্বাচনী কার্যক্রম থেকে দূরে সরে আসছেন।

ড: অজয় কুমার যেভাবে তাঁর পদ থেকে সরিয়ে দেওয়ার আগে বেশ কিছূ নেতার ব্যাপারে গুরুতর অভিযোগ করেছিলেন।

ঝারখণ্ডে কংগ্রেসের বড় নেতারা ভীষণ ক্ষুব্ধ

এতে দলের শীর্ষ নেতারা ক্ষুব্ধ হয়েছেন।

এই অসন্তোষটি ডঃ অজয় কুমারের পাশাপাশি দলের ঝাড়খণ্ড ইনচার্জের প্রতিও বেশি।

আসলে, বড় নেতারাও ধরে নিচ্ছেন যে রাহুল গান্ধী অধ্যক্ষ পদ ছাড়ার পর থেকে এই পুরো দলটি মাথা ছাড়াই করা হয়েছে।

এ কারণে, দলে কোনও নীতিগত সিদ্ধান্ত নেই, কারণ কোনও নেতাই তার পক্ষে অগ্রসর হতে রাজি নন।

এই সমস্ত জবাবদিহি দলের ঝাড়খণ্ড ইনচার্জকে দেওয়া হয়েছে।

আরজেডিতে তেজশ্বী এবং তেজ প্রতাপের বিবাদের কারণে ঝাড়খণ্ডে দলটি এখন সরাসরি লালু প্রসাদের কাছ থেকে নির্দেশনা পেতে চায়।

তাই আরজেডি নেতারাও এগিয়ে যাওয়ার পথ থেকে সরে যাচ্ছেন।

সামগ্রিকভাবে, বিজেপির কাছে বর্তমানে বাহিরের বাইরে থেকে কম এবং দলের অভ্যন্তর থেকে বেশি চ্যালেঞ্জ রয়েছে বলে মনে হচ্ছে।

প্রতিটি আসনে প্রার্থী সংখ্যার কারণে, টিকিট না পাওয়ার ক্ষেত্রে কী হবে তার উপর অনেক কিছুই নির্ভরশীল।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ব্রেকিং নিউজ
Bengali English Hindi